নীরব প্রার্থনা – এটি কি বাইবেল সম্মত?


প্রশ্ন: নীরব প্রার্থনা – এটি কি বাইবেল সম্মত? সমবেত প্রার্থনা কী ব্যক্তিগত বা একক প্রার্থনার চেয়ে অধিক শক্তিশালী?

উত্তর:
বাইবেল হান্নার শ্রবণাতীত নিবেদনে নীরব প্রার্থনার একটি উদাহরণ দেয় (1 শমুয়েল 1:10, 13), তবে এটি নীরব প্রার্থনার উপরে নির্দিষ্ট নির্দেশাবলী দেয় না I তার অর্থ এই নয় যে নীরব প্রার্থনা উচ্চৈস্বরে প্রার্থনার চেয়ে কোনো অংশে কম বৈধ – যাই হোক না কেন হান্নার প্রার্থনার উত্তর দেওয়া হয়েছিল I ঈশ্বর আমাদের চিন্তাভাবনা শুনতে পান ঠিক যেমনি তিনি আমাদের বাক্য শোনেন (গীতসংহিতা 139:23; যিরমিয় 12:3) I যীশু ফরীশীদের মন্দ চিন্তাকে জানতেন (মথি 12:24-26; লুক 11:17) I যা কিছু আমরা করি, বলি বা ভাবি, ঈশ্বরের থেকে লুকোনো থাকে না, যাঁর আমাদের ভাবনাচিন্তা জানতে আমাদের বাক্য শোনার দরকার নেই I তাঁর প্রতি নির্দেশিত সমস্ত প্রার্থনার মধ্যে তাঁর প্রবেশ আছে, তা বলা হোক কিম্বা না হোক I

বাইবেল গোপন প্রার্থনার সম্বন্ধে উল্লেখ করে (মথি 6:6) I উচ্চৈস্বরে এবং নীরব প্রার্থনার মধ্যে কি পার্থক্য আছে যদি আপনি নিজে থেকে থাকেন? এমন কোনো পরিস্থিতি আছে যেখানে কেবল নীরব প্রার্থনা উপযুক্ত, যেমন এমন কিছুর জন্য প্রার্থনা করা যা কেবল আপনার এবং ঈশ্বরের মধ্যে থাকার দরকার, এমন কারোর জন্য প্রার্থনা করা যিনি উপস্থিত আছেন, ইত্যাদি I নীরব প্রার্থনার মধ্যে অন্যায় কিছু নেই, যতক্ষণ না এটি করতে যাওয়ার কারণে প্রার্থনা শোনার দ্বারা আপনার বিড়ম্বনা হয় I

সম্ভবত অকথিত প্রার্থনার বৈধতার সংকেত দিতে সর্বোত্তম পদটি হ’ল 1 থিষলনীকীয় 5:17: “অবিরত প্রার্থনা কর I” অবিরত প্রার্থনা করার অর্থ অবশ্যই নয় যে আমরা সর্বদা উচ্চৈস্বরে প্রার্থনা করছি I বরং এটির অর্থ হল, আমাদেরকে সর্বদা ঈশ্বর-চেতনতার অবস্থায় থাকতে হবে, যেখানে সমুদয় চিন্তাকে তাঁর কাছে বন্দী করে রাখি (2 করিন্থীয়া 10:5) এবং প্রত্যেক পরিস্থিতি, পরিকল্পনা, ভয়, বা উদ্বেগ তাঁর সিংহাসনের সামনে নিয়ে আসি I অবিরত প্রার্থনা যা বলা হয়, ফিসফাস করা, কলরব, গীত, এবং নীরব প্রার্থনা সকলকে অন্তর্ভুক্ত করবে যেন আমরা আমাদের ভাবনাচিন্তা, প্রশংসা, নিবেদন, আবেদন, এবং ধন্যবাদকে ঈশ্বরের প্রতি নির্দেশ করি I

English
বাংলা হোম পেজে ফিরে যান
নীরব প্রার্থনা – এটি কি বাইবেল সম্মত?

কিভাবে খুঁজে ...

ঈশ্বর সঙ্গে অনন্তকাল কাটা



ঈশ্বরের কাছ থেকে ক্ষমা লাভ করুন