কেন যীশু খ্রীষ্টের পুনরুত্থান গুরুত্বপূর্ণ?


প্রশ্ন: কেন যীশু খ্রীষ্টের পুনরুত্থান গুরুত্বপূর্ণ?

উত্তর:
যীশুর পুনরুত্থান বিভিন্ন কারণে গুরুত্বপূর্ণ I প্রথমত, পুনরুত্থান স্বয়ং ঈশ্বরের অপরিসীম শক্তির স্বাক্ষ্য দেয় I পুনরুত্থানে বিশ্বাস করা ঈশ্বরের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করা I যদি ঈশ্বর উপস্থিত থাকেন, এবং যদি তিনি মহাবিশ্ব সৃষ্টি করে থাকেন এবং এর উপরে ক্ষমতা রাখেন, তাহলে তিনি মৃতদেরকে উত্থিত করার ক্ষমতা রাখেন I তাঁর যদি এই জাতীয় ক্ষমতা না থাকে তবে তিনি আমাদের বিশ্বাস ও আরাধনার যোগ্য নন I যিনি জীবন সৃষ্টি করেছেন কেবল তিনিই মৃত্যুর পরে এটি পুনরুত্থিত করতে পারবেন, মৃত্যুর যে নিজস্ব ঘৃণ্যতা তিনিই কেবল তা উল্টে দিতে পারেন এবং কেবল তিনিই এই দংশনটি সরিয়ে কবরের উপরে বিজয় অর্জন করতে পারেন (1 করিন্থীয়ান 15:54-55) I যীশুকে কবর থেকে পুনরুত্থিত করার সময় জীবন ও মৃত্যুর উপরে ঈশ্বর তাঁর পরম সার্বভৌমত্বের কথা স্মরণ করিয়ে দেন I

যীশু খ্রীষ্টের পুনরুত্থান আরও গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটি যীশুকে ঈশ্বরের পুত্র এবং মশীহ নামে দাবি করাকে বৈধতা দেয় I যীশুর মতে তাঁর পুনরুত্থান হল “স্বর্গ থেকে চিহ্ন” যা তাঁর সেবাকার্যকে সত্যায়িত করেছিল (মথি 16:1-4) I কয়েকশ প্রত্যক্ষদর্শীর দ্বারা প্রমাণিত যীশু খ্রীষ্টের পুনরুত্থান (1 করিন্থীয়ান 15: 3-8), অকাট্য প্রমাণ প্রদান করে যে তিনিই জগতের উদ্ধারকর্তা I

যীশু খ্রীষ্টের পুনরুত্থান গুরুত্বপূর্ণ হওয়ার আর একটি কারণ হ’ল এটি তাঁর পাপহীন চরিত্র এবং ঐশ্বরিক প্রকৃতির প্রমাণ দেয় I শাস্ত্র বাক্য বলে যে ঈশ্বরের “পবিত্র একজন” কখনই দুর্নীতি দেখবেন না (গীতসংহিতা 16:10) এমনকি তাঁর মারা যাবার পরেও তিনি কখনও দুর্নীতি দেখেন নি (দেখুন প্রেরিত 13:32-37) I খ্রীষ্টের পুনরুত্থানের ভিত্তিতে পৌল প্রচার করেছিলেন, “যীশুর মাধ্যমে পাপের ক্ষমা তোমাদের কাছে ঘোষণা করা হয়েছে I তাঁর মাধ্যমে যে কেউ বিশ্বাস করে পাপ থেকে মুক্তি পেয়েছে” (প্রেরিত 13:38-39) I

যীশু খ্রীষ্টের পুনরুত্থান কেবল তাঁর দেবত্বের সর্বোচ্চ বৈধতা নয়; এটি পুরনো নিয়মের ভবিষ্যদ্বাণীগুলিকে বৈধতা দেয় যা যীশুর দুঃখ ও পুনরুত্থানের পূর্বাভাষ দিয়েছিল (দেখুন প্রেরিত 17:2-3) I খ্রীষ্টের পুনরুত্থান তার দাবিকেও প্রমাণিত করেছিল যে তিনি তৃতীয় দিনে পুনরুত্থিত হবেন (মার্ক 8:31; 9:31; 10:34) I যীশুকে যদি পুনরুত্থিত না করা হয়ে থাকে, তবে আমাদের কোনো আশা নেই যে আমরাও হব I প্রকৃতপক্ষে, খ্রীষ্টের পুনরুত্থান ব্যতীত আমাদের কোনো উদ্ধারকর্তা নেই, উদ্ধার নেই এবং অনন্ত জীবনের কোনো আশা নেই I পৌল যেমন বলেছিলেন, আমাদের বিশ্বাস “অকেজো” হয়ে গেছে, সুসমাচারটি পুরোপুরি শক্তিহীন হবে, এবং আমাদের পাপ ক্ষমাহীন হয়ে থাকবে (1 করিন্থীয়ান 15:14-19) I

যীশু বলেছিলেন, “আমিই পুনরুত্থান ও জীবন” (যোহন 11:25), এবং ওই উক্তির মধ্যে উভয়ের উৎস বলে দাবি করা হয়েছে I খ্রীষ্ট ব্যতীত আর কোনো পুনরুত্থান নেই, কোন অনন্ত জীবন নেই I যীশু জীবন দেওয়ার চেয়ে আরও বেশি কিছু দেন; তিনিই হন জীবন, আর সেই কারণে তাঁর উপরে মৃত্যুর কোনো শক্তি নেই I যীশু তাদের উপরে তাঁর জীবন প্রদান করেন যারা তাঁর উপরে ভরসা করে, যাতে আমরা তাঁর মৃত্যুর উপরে জয় ভাগ করে নিতে পারি (1 যোহন 5:11-12) I আমরা যারা যীশু খ্রীষ্টতে বিশ্বাস করি তারা ব্যক্তিগতভাবে পুনরুথানের অভিজ্ঞতা লাভ করব কারণ, যীশুর দেওয়া জীবন থাকাতে, আমরা মৃত্যুকে জয় করেছি I মৃত্যুর পক্ষে জয় পাওয়া অসম্ভব (1 করিন্থীয়ান 15:53-57) I

যীশু “নিদ্রাগতদের অগ্রিমাংশ” (1 করিন্থীয়ান 15:20) I অন্য কথায়, যীশু মৃত্যুর পরে জীবনের পথকে পরিচালিত করেছিলেন I মানুষের পুনরুত্থানের স্বাক্ষ্য হিসাবে যীশু খ্রীষ্টের পুনরুত্থান গুরুত্বপূর্ণ, যা খ্রিষ্টীয় বিশ্বাসের একটি মূল মতবাদ I অন্যান্য ধর্মের বিপরীত, খ্রীষ্ট ধর্মে এমন একজন প্রতিষ্ঠাতা রয়েছে যিনি মৃত্যুকে অতিক্রম করেছেন এবং প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যে তাঁর অনুগামীরাও একই কাজ করবেন I প্রতিটি অনান্য ধর্ম পুরুষ বা ভাববাদী দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল যার শেষটি ছিল সমাধি I খ্রীষ্টান হিসাবে আমরা জানি যে ঈশ্বর মানুষ হয়েছিলেন, আমাদের পাপের জন্য মারা গিয়েছিলেন এবং তৃতীয় দিনে পুনরুত্থিত হয়েছিলেন I কবর তাঁকে ধরে রাখতে পারে নি I তিনি বেঁচে আছেন এবং পিতার ডানদিকে বসে আছেন (ইব্রীয় 10:12) I

ঈশ্বরের বাক্য পরমানন্দে তাঁর মন্ডলীর জন্য যীশু খ্রীষ্টের আগমনের সময় বিশ্বাসীর পুনরুত্থানের গ্যারান্টি দেয় I এই জাতীয় আশ্বাস 1 করিন্থীয়ান 15:55 এর মধ্যে পৌলের লেখার ফল স্বরূপ, “হে মৃত্যু, কোথায় তোমার বিজয়? হে মৃত্যু কোথায় তোমার হুল?” (তুলনা হোশেয়া 13:14) I

খ্রীষ্টের পুনরুত্থানের গুরুত্ব এখন প্রভুর প্রতি আমাদের সেবার উপরে প্রভাব ফেলে I পৌল এই বাক্যগুলির দ্বারা পুনরুথানের বিষয়ে তাঁর বক্তৃতাটি শেষ করেছেন: “অতএব হে আমার প্রিয় ভ্রাতা এবং ভগ্নীগণ, দৃঢ় হও I নিশ্চল হও I প্রভুর কাজে সর্বদা উপচিয়া পড়, কেননা তোমরা জান যে, প্রভুতে তোমাদের পরিশ্রম বৃথা নয়” (1 করিন্থীয়ান 15:58) I যেহেতু আমরা আনি যে আমরা নতুন জীবনে পুনরুত্থিত হব, আমরা খ্রীষ্টের পক্ষে তাড়না এবং বিপদ সহ্য করতে পারি (পদ সমূহ 30-32), যেমন আমাদের প্রভু করেছিলেন I যীশু খ্রীষ্টের পুনরুত্থানের কারণে, ইতিহাসের মাধ্যমে হাজার হাজার খ্রীষ্টান শহীদ স্বেচ্ছায় অনন্তকালীন জীবন এবং পুনরুত্থানের প্রতিশ্রুতিতে তাদের পার্থিব জীবন বিনিময় করেছে I

পুনরুত্থান প্রতিটি বিশ্বাসীর জন্য বিজয়ী ও গৌরবময় বিজয় I শাস্ত্র বাক্য অনুসারে যীশু খ্রীষ্ট মারা গিয়েছিলেন, কবর দেওয়া হয়েছিল এবং তৃতীয় দিনে উঠেছিলেন (1 করিন্থীয়ান 15:3-4) I এবং তিনি আবার আসছেন! খ্রীষ্টের মধ্যে মৃতদের পুনরুত্থিত করা হবে, এবং যারা তাঁর আগমনে বেঁচে আছেন তারা পরিবর্তিত হয়ে নতুন ও মহিমান্বিত দেহ পাবেন (1 থিষলনীকীয় 4:13-18) I কেন যীশু খ্রীষ্টের পুনরুত্থান গুরুত্বপূর্ণ? এটি প্রমান করে যীশু কে I এটি দেখায় যে ঈশ্বর আমাদের পক্ষে যীশুর বলিদান স্বীকার করেছিলেন I এটি দেখায় যে আমাদেরকে মৃতদের মধ্য থেকে উত্থিত করার ঈশ্বরের কাছে ক্ষমতা রয়েছে I এটি গ্যারান্টি দেয় যে যীশুতে যারা বিশ্বাস করে তাদের দেহগুলি মৃত থাকবে না তবে অনন্ত জীবনে পুনরুত্থিত হবে I

English
বাংলা হোম পেজে ফিরে যান
কেন যীশু খ্রীষ্টের পুনরুত্থান গুরুত্বপূর্ণ?

কিভাবে খুঁজে ...

ঈশ্বর সঙ্গে অনন্তকাল কাটা



ঈশ্বরের কাছ থেকে ক্ষমা লাভ করুন