এত বেশি খ্রীষ্টান সম্প্রদায়গুলি কেন?


প্রশ্ন: এত বেশি খ্রীষ্টান সম্প্রদায়গুলি কেন?

উত্তর:
এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য আমাদের অবশ্যই প্রথমে খ্রীষ্টের দেহের মধ্যে সম্প্রদায়গুলি এবং অ-খ্রিষ্টীয় পন্থ ও মিথ্যা ধর্মগুলির মধ্যে পার্থক্য করতে হবে I প্রেসবাইটেরিয়ান এবং লুথেরান খ্রীষ্টান সম্প্রদায় হ’ল উদাহরণ I মরমোন এবং যিহোবার সাক্ষীরা পন্থ সম্প্রদায়ের উদাহরণ (গোষ্ঠীগুলি খ্রীষ্টান হওয়ার দাবি করে তবে খ্রীষ্টিয় বিশ্বাসের এক বা একাধিক প্রয়োজনীয়তাকে অস্বীকার করে) I ইসলাম এবং বৌদ্ধ ধর্ম সম্পূর্ণরূপে আলাদা ধর্ম I

খ্রীষ্টীয় বিশ্বাসের মধ্যে ধর্মীয় সম্প্রদায়ের উত্থানটি প্রোটেষ্টান্ট সংস্কারের দিকে ফিরলে পাওয়া যায়, ষোড়োশ শতাব্দীতে রোমান ক্যাথলিক মন্ডলীর “সংস্কার” করার আন্দোলন, যার মধ্যে চারটি প্রধান বিভাগ বা প্রোটেষ্টানবাদের ঐতিহ্য উদ্ভূত হয়: লুথেরান, সংশোধিত, আনাব্যাপটিস্ট, এবং আংলিকান I এই চারটির থেকে, অন্যান্য সম্প্রদায়গুলি কয়েক শতাব্দী ধরে বৃদ্ধি পেয়েছিল I

লুথেরান সম্প্রদায়টির নাম মার্টিন লুথারের উপরে নামকরণ করা হয়েছিল এবং তার শিক্ষার উপরে ভিত্তি করে তৈরী হয়েছিল I মেথোডিস্টরা তাদের নামটি পেয়েছিল কারণ তাদের প্রতিষ্ঠাতা জন ওয়েলেসলী আধ্যাত্মিক বৃদ্ধির জন্য “পদ্ধতি” নিয়ে আসার জন্য বিখ্যাত ছিলেন I মন্ডলীর নেতৃত্ব সম্পর্কে তাদের দৃষ্টিভঙ্গির জন্য প্রেসবাইটেরিয়ানদের নামকরণ করা হয়েছিল – প্রাচীনদের জন্য গ্রীক শব্দটি হ’ল প্রেসবাইটেরস I বাপ্টিস্টরা তাদের নাম পেয়েছিল কারণ তারা সর্বদা বাপ্তিস্মের গুরুত্ত্বের উপর জোর দিয়েছিলেন I প্রতিটি সম্প্রদায়ের অন্যদের থেকে কিছুটা আলাদা মতবাদ বা জোর থাকে যেমন বাপ্তিস্মের পদ্ধতি, সকলের কাছে প্রভুর ভোজের যোগ্যতা বা কেবল তাদের কাছে যাদের স্বাক্ষ্যগুলিকে মন্ডলীর নেতাদের দ্বারা যাচাই করা যেতে পারে, ঈশ্বরের সার্বভৌমত্ব বনাম পরিত্রাণের ক্ষেত্রে স্বাধীন ইচ্ছা, ইস্রায়েলের ভবিষ্যত এবং মন্ডলী, প্রাক-দুর্দশা বনাম উত্তর-দুর্দশা, আধুমিক যুগে “চিহ্ন” বরদানগুলির উপস্থিতি, এবং ইত্যাদি ইত্যাদি I এই বিভাগগুলির মূল বিষয়টি কখনই প্রভু ও উদ্ধারকর্তারূপে খ্রীষ্ট নয়, বরং ত্রুটিযুক্ত হলেও ঈশ্বরীয় মতামতের সৎ ভিন্নতা I লোকেরা ঈশ্বরকে সম্মান জানাতে চায় এবং তাদের বিবেক এবং তাঁর বাক্যকে বোঝার জন্য তাত্ত্বিক পবিত্রতা ধরে রাখে I

সংজ্ঞা আজ অনেক এবং বৈচিত্র্যময় I উপরে বর্ণিত মূল “প্রধান সারির” সম্প্রদায়গুলি অসংখ্য প্রশাখার জন্ম দিয়েছে যেমন আসেম্বলি অফ গড, খ্রীষ্টান ও মিশনারী এলায়েন্স, নাসরিন, এভেনজালিকাল ফ্রী, স্বাধীন বাইবেল মন্ডলীগুলি এবং অন্যান্য I কতিপয় মতবাদ সংক্রান্ত পার্থক্যগুলির উপরে জোর দেয়, তবে প্রায়শই তারা খ্রীষ্টানদের পৃথক পৃথক স্বাদ এবং পচ্ছন্দ অনুসারে উপাসনার বিভিন্ন ধরণের প্রস্তাব দেয় I তবে কোনো ভুল করবেন না: বিশ্বাসী হিসাবে আমাদের অবশ্যই বিশ্বাসের প্রয়োজনীয়তার বিশ্বাসে এক মন হতে হবে, তবে এর বাইরেও খ্রীষ্টানদের কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানে কিভাবে উপাসনা করা উচিত সে বিষয়ে অনেক বড় ব্যাপ্তি রয়েছে I এই ব্যাপ্তিটিই খ্রীষ্ট ধর্মের বিভিন্ন “আস্বাদন” তৈরী করে I উগান্ডার একটি প্রেসবেটিরিয়ার মন্ডলীর উপাসনার ধরনটি কলোরাডোর একটি প্রেসবেটিরিয়ার মন্ডলীর চেয়ে অনেক আলাদা হবে, তবে তাদের মতবাদগত অবস্থানটি বেশিরভাগ অংশে একই রকম হবে I বৈচিত্র্য একটি ভাল জিনিস, কিন্তু বিভেদ না I যদি দুটি মন্ডলী তাত্তিকভাবে দ্বিমত পোষণ করে তবে শব্দটির বিষয়ে বিতর্ক এবং সংলাপের আহ্বান জানানো যেতে পারে I এই ধরণের “লোহা লোহাকে তীক্ষ্ণ করে” (হিতোপদেশ 27:17) সকলের পক্ষে উপকারী I তারা যদি শৈলী এবং ফর্মের সাথে একমত না হয় তবে তাদের আলাদা থাকার পক্ষে এটি ভাল I এই বিচ্ছেদ যদিও খ্রীষ্টানদের একে অপরকে ভালবাসার দায়িত্বকে তুলে নেবে না (1 যোহন 4:11-12) এবং শেষ পর্যন্ত খ্রীষ্টের মধ্যে এক হয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে যাবে (যোহন 17:21-22) I

খ্রীষ্টীয় সপ্রদায়গুলির নকারাত্মক পক্ষ:

সম্প্রদায়বাদ নিয়ে কমপক্ষে দুটি বড় সমস্যা রয়েছে বলে মনে হয় I প্রথমত, শাস্ত্রে কোথাও সম্প্রদায়বাদের বাধ্যতামূলক আদেশ নেই, বিপরীতে বাধ্যতামূলক আদেশটি ঐক্য এবং সংযোগের জন্য I সুতরাং দ্বিতীয় সমস্যাটি হ’ল ইতিহাস আমাদের বলে যে সম্প্রদায়বাদ দ্বন্দ এবং সংঘাতের ফল বা ঘটিত হয় I যীশু আমাদের বলেছিলেন যে নিজের বিরুদ্ধে বিভক্ত বাড়িটি দাঁড়িয়ে থাকতে পারে না I এই সাধারণ নীতিটি মন্ডলীতে প্রয়োগ করা যেতে পারে এবং করা উচিত I আমরা করিন্থীয় গির্জার মধ্যে এর উদাহরণ পাই যা বিভাজন বিচ্ছিনতার বিরুদ্ধে লড়াই করে যাচ্ছি I সেখানে যারা ছিলেন তারা ভেবেছিলেন যে তাদের পৌলকে অবুসরণ করা উচিত এবং তারা যারা মনে করেছিলেন যে তাদের আপোল্লোকে অনুসরণ করা উচিত, 1 করিন্থীয়া 1:12, “আমি যা বলছি তা হ’ল এই: তোমাদের মধ্যে প্রত্যেকে বলে, “আমি পৌলের সাথে আছি,” বা “আমি আপল্লোর সাথে আছি,” বা “আমি কৈফার সাথে আচ্ছি,” বা “আমি খ্রীষ্টের সাথে আছি I” একমাত্র এটিই আপনাদের বলে পৌল সম্প্রদায়বাদ বা অন্য কিছু যা দেহকে পৃথক ও বিভাজন করে সেই সম্পর্কে কি ভাবতেন I তবে আসুন আরও দেখা যাক; 13 পদে পৌল বিশেষভাবে প্রশ্নটিকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, “খ্রীষ্ট কি বিভক্ত? তিনিই কি তোমাদের জন্য ক্রুশে বিদ্ধ হওয়া পৌল ছিল? বা তোমরা কি পৌলের নামে বাপ্তিস্ম নিয়েছ?” এটি স্পষ্ট করে তোলে পৌল কিভাবে অনুভব করেন I তিনি (পৌল) খ্রীষ্ট নন I তিনি যাকে ক্রুশে বিদ্ধ করা হয়েছিল তিনি নন, এবং তাঁর বার্তাটি কখনও এমন হয় নি যা মন্ডলীর বিভাজন ঘটায় বা খ্রীষ্টের পরিবর্তে কাউকে পৌলের উপাসনা করতে পরিচালিত করত I স্পষ্টতই পৌলের মতে, কেবলমাত্র একটি মন্ডলী এবং বিশ্বাসীদের একটি দেহ আছে এবং যা কিছু আলাদা তা মন্ডলীকে দুর্বল করে এবং ধ্বংস করে দেয় (দেখুন পদ 17) I তিনি এই বিষয়টি 3:4 এ আরও শক্তিশালী করে বলেছিলেন যে কেউ বলে যে তারা পৌল বা আপল্লোর, তারা দৈহিক I

আমরা যখন সম্প্রদায়বাদ এবং এর সাম্প্রতিক ইতিহাসের দিকে তাকাই তখন আমরা কিছু সমস্যার সম্মুখীন হই:

1. শাস্ত্রের ব্যাখ্যা নিয়ে মতবিরোধের ভিত্তিতে সম্প্রদয়বাদগুলি I একটি উদাহরণ হবে বাপ্তিস্মের অর্থ এবং উদ্দেশ্য I বাপ্তিস্ম কি পরিত্রাণের প্রয়োজনীয়তা বা এটি পরিত্রাণের প্রক্রিয়ার প্রতীক I এই বিষয়টির উভয় পক্ষেই সম্প্রদায়বাদ রয়েছে I প্রকৃতপক্ষে, বাপ্তিস্ম – এর অর্থ, এর প্রণালী, কে এটিকে গ্রহণ করতে পারে, ইত্যাদি – মন্ডলীর বিচ্ছন্নতা এবং নতুন সম্প্রদায় গঠনে কেন্দ্রীয় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে I

2. শাস্ত্রের ব্যাখ্যার বিষয়ে মতভেদগুলি বক্তিগতভাবে নেওয়া হয় এবং বিতর্কের বিন্দু হয়ে দাঁড়ায় I এটি বিতর্কগুলির দিকে নিয়ে যায় এবং মন্ডলীর স্বাক্ষী নষ্ট করতে অনেক কিছু করেছে I

3. মন্ডলীর দেহের ভেতরে তার পার্থক্যগুলি সমাধান করতে সক্ষম হওয়া উচিত, তবে ইতিহাস আবার আমাদের বলে যে এটি ঘটে না I আজ গণমাধ্যমগুলি আমাদের বিভেদগুলিকে আমাদের বিপরীতে ব্যবহার করে প্রদর্শন করতে যে আমরা চিন্তায় বা উদেশ্যে একীভূত নই I

4. নিজ স্বার্থের তাগিদে সম্প্রদায়বাদ মানুষের দ্বারা ব্যবহৃত হয় I বর্তমানে এমন সম্প্রদায়বাদ রয়েছে যা স্ব-ধ্বংসের অবস্থায় রয়েছে কারণ তারা তাদের ব্যক্তিগত এজেন্ডা প্রচার করছে তাদের দ্বারা ধর্ম ত্যাগের দিকে পরিচালিত হচ্ছে I

5. ঐক্যের মূল্য পাওয়া যায় আমাদের হারিয়ে যাওয়া বিশ্বে রাজ্যকে প্রচার করার জন্য আমাদের বরদান এবং সম্পদগুলির মধ্যে সরবরাহ করার সক্ষমতার মধ্যে I এটি সম্প্রদায়বাদ দ্বারা সৃষ্ট বিভাগগুলির বিপরীতে চলে I

একজন বিশ্বাসীকে কি করতে হবে? আমাদেরকে কি সম্প্রদায়গুলিকে উপেক্ষা করা উচিত? মন্ডলীতে না গিয়ে আমাদের কেবল ঘরে বসে কি প্রার্থনা করা উচিত? উভয় প্রশ্নের উত্তর না I আমাদের যা অন্বেষণ করা উচিত তা হ’ল বিশ্বাসীদের দেহ যেখানে খ্রীষ্টের সুসমাচার প্রচার করা হয়, যেখানে আপনি প্রভুর সাথে ব্যক্তিগত সম্পর্ক রাখতে পারেন, যেখানে আপনি বাইবেল সংক্রান্ত পরিচর্যাগুলিতে যোগদান করতে পারেন যা সুসমাচার প্রচার করছে এবং ঈশ্বরের গৌরব করছে I মন্ডলী গুরুত্বপূর্ণ, এবং সমস্ত বিশ্বাসীদের এমন একটি দেহের অন্তর্ভুক্ত হওয়া উচিত যা উপরের মানদণ্ডে খাপ খায় I আমাদের এমন সম্পর্ক দরকার যা কেবল বিশ্বাসীদের দেহে পাওয়া যায়, আমাদের এমন এক সমর্থন প্রয়োজন যা মন্ডলী দিতে পারে, এবং আমাদের সম্প্রদায়ের পাশাপাশি স্বতন্ত্রভাবে ঈশ্বরের সেবা করা দরকার I খ্রীষ্টের সাথে সম্পর্কের ভিত্তিতে এবং এবং এই সম্প্রদায়ের কতটা ভাল সেবা করছে তার ভিত্তিতে মন্ডলীটিকে বেছে নিন I এমন একটি মন্ডলী বেছে নিন যেখানে পাস্টর নির্ভয়ে সুসমাচার প্রচার করছেন এবং তা করতে উৎসাহিত হয়েছেন I বিশ্বাসী হিসাবে, এমন কিছু প্রাথমিক মতবাদ রয়েছে যা আমাদের অবশ্যই বিশ্বাস করতে হবে, তবে এর বাইরে আমরা কিভাবে সেবা করতে পারি এবং উপাসনা করতে পারি তার উপরে ব্যাপ্তি রয়েছে; এটিই এই ব্যাপ্তি যা মূলত সম্প্রদায়ের একমাত্র কারণ I এটি বৈচিত্র্য এবং মোটেও বিভেদ নয় I প্রথমটি খ্রীষ্টে আমাদের স্বতন্ত্র হতে দেয়; পরেরটি বিভাজন এবং ধ্বংস করে দেয় I

English
বাংলা হোম পেজে ফিরে যান
এত বেশি খ্রীষ্টান সম্প্রদায়গুলি কেন?

কিভাবে খুঁজে ...

ঈশ্বর সঙ্গে অনন্তকাল কাটা



ঈশ্বরের কাছ থেকে ক্ষমা লাভ করুন