আজকের দিনে একজন খ্রীষ্টান কি ভূত তাড়ানোর কাজ করে?


প্রশ্ন: আজকের দিনে একজন খ্রীষ্টান কি ভূত তাড়ানোর কাজ করে?

উত্তর:
সুসমাচার এবং প্রেরিতের বইয়ের মধ্যে ভূত তাড়ানোর কাজ (অন্য লোকেদের ছেড়ে দিতে ভূতদের আদেশ দান) বিভিন্ন লোকেদের দ্বারা অনুশীলন করা হত – খ্রীষ্টের নির্দেশাবলীর অংশের শিষ্য হিসাবে (মথি 10); অন্যরা খ্রীষ্টের নাম ব্যবহার করে (মার্ক 9:38); ফারিসীদের সন্তানরা (লুক 11:18-19); পৌল (প্রেরিত 16); এবং কিছু ওঝা (প্রেরিত 19:11-16) I

এটি দেখা যায় যে যীশুর শিষ্যদের ভূত ছাড়াবার কাজ করার উদ্দেশ্য ছিল ভূতদের উপরে খ্রীষ্টের আধিপত্য প্রদর্শন করা (লুক 10:17) এবং শিষ্যরা তাঁর নামে ও তাঁর কর্ত্তৃত্বর দ্বারা কাজ করছে কিনা তা যাচাই করা I এটি তাদের বিশ্বাস বা বিশ্বাসের অভাবও প্রকাশ করেছিল (মথি 17:14-21) I এটি স্পষ্ট ছিল যে শিষ্যদের সেবাকার্য়ের জন্য ভূতদের তাড়িয়ে দেওয়ার এই কাজটি গুরুত্বপূর্ণ ছিল I তবে, শিষ্যত্ব প্রক্রিয়ায় ভূতদের তাড়ানো আসলে কি ভূমিকা ছিল তা অস্পষ্ট I

মজার বিষয় হল, ভূত সংক্রান্ত যুদ্ধের বিষয়ে নতুন নিয়মের পরবর্তী অংশে কোনও পরিবর্তন ঘটেছে বলে মনে হচ্ছে I নতুন নিয়মের শিক্ষার অংশগুলি (রোমীয় থেকে নিয়ে যিহূদা পর্যন্ত) ভূত সংক্রান্ত ক্রিয়াকলাপকে উল্লেখ করে তবুও তাদের নিক্ষেপ করার ক্রিয়াকলাপ নিয়ে আলোচনা করে না, অথবা বিশ্বাসীদের এটি করার জন্য উৎসাহিত করে না I আমাদেরকে তাদের বিরুদ্ধে বর্ম পরিধান করতে বলা হয় (ইফিষীয় 6:10-18) I আমাদেরক শয়তানকে প্রতিরোধ করতে বলা হয় (যাকোব 4:7), তার সম্বন্ধে সতর্ক থেকো (1 পিতর 5:8), এবং আমাদের জীবনে তাকে জায়গা দিও না (ইফিষীয় 4:27) I তবে কিভাবে তাকে বা তার ভূতদের অন্যদের থেকে নিক্ষেপ করা যায় তা আমাদের বলা হয় নি, বা এমনকি এটি করতে আমাদের বিবেচনা করা উচিত I

ইফিষীয়র বইটি কিভাবে মন্দশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আমাদের জীবনে বিজয় অর্জন করতে হয় সে সম্পর্কে সুস্পষ্ট নির্দেশনা দেয় I প্রথম পদক্ষেপটি খ্রীষ্টের প্রতি আমাদের বিশ্বাস স্থাপন করা (2:8-9), যা “আকাশের ক্ষমতার রাজপুত্রকে” ভগ্ন করে (2:2) I তারপরে আমরা আবার ঈশ্বরের অনুগ্রহে অধার্মিক অভ্যাস ছেড়ে দিতে এবং ঐশ্বরিক অভ্যাসগুলি বজায় রাখতে পারি (4:17-24) I এটি ভূতদের নিক্ষেপ করা নয়, বরং আমাদের মনকে পুনর্নবীকরণ করা জড়িত করে (4:23) I তাঁর সন্তান হিসাবে কিভাবে ঈশ্বরকে মান্য করতে হয় সেই সম্বন্ধে বিভিন্ন ব্যবহারিক নির্দেশাবলী দেওয়ার পরে, আমাদের মনে করিয়ে দেওয়া হয় যে এক আত্মিক লড়াই চলছে I এটিকে নির্দিষ্ট বর্মের সাথে লড়াই করা হয় যা আমাদের দাঁড়াতে অনুমতি দেয় – নিক্ষেপ করতে নয় – দানবীয় জগতের বিরুদ্ধে (6:10) I আমরা সত্য, ধার্মিকতা, সুসমাচার, বিশ্বাস, পরিত্রান, ঈশ্বরের বাক্য, এবং প্রার্থনার সাথে দাঁড়াই (6:10-18) I

এটি ঈশ্বরের বাক্যটি সম্পূর্ণ হওয়ার সাথে সাথে দেখা যায় যে খ্রীষ্টানদের আত্মিক বিশ্বের সাথে লড়াই করার জন্য প্রাথমিক খ্রীষ্টানদের চেয়ে আরও অধিক অস্ত্র ছিল I ঈশ্বরের বাক্যের মাধ্যমে সুসমাচার প্রচার এবং শিশ্যত্বের সাথে বেশিরভাগ অংশে ভূতদের নিক্ষেপের ভূমিকাকে প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল I যেহেতু নতুন নিয়মে আত্মিক যুদ্ধের পদ্ধতিগুলি ভূতদের নিক্ষেপ করার সাথে জড়িত নয়, সুতরাং কিভাবে এই জিনিসটি করা যায় সে সম্পর্কে নির্দেশনা নির্ধারণ করা কঠিন I যদি আদৌ প্রয়োজন হয়, তবে মনে হয় ব্যক্তিকে ঈশ্বরের বাক্য এবং যীশু খ্রীষ্টের নামের কাছে প্রকাশ করার মাধ্যমে এটি করা I

English
বাংলা হোম পেজে ফিরে যান
আজকের দিনে একজন খ্রীষ্টান কি ভূত তাড়ানোর কাজ করে?

কিভাবে খুঁজে ...

ঈশ্বর সঙ্গে অনন্তকাল কাটা



ঈশ্বরের কাছ থেকে ক্ষমা লাভ করুন